যশোর শহরে পারভেজ নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা ঘটনায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে গোটা এলাকা জুড়ে : ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা  

CNNWorld24
CNNWorld24 Dhaka
প্রকাশিত: 5:26 PM, February 17, 2021

মহসিন মিলন,বেনাপোলঃযশোর শহরের ঘোপ বেলতলা বউবাজার এলাকায় পারভেজ (৩০) নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে গোটা এলাকা জুড়ে।
তবে নিহত পারভেজ যে প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা করছিলেন তার দাবি তাকে নির্বাচন থেকে সরে যেতে হুমকি দেয়া হয়েছিল। এর দুইদিন পরই এ হত্যাকান্ড ঘটেছে।

অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করেছেন প্রতিপক্ষ প্রার্থী বর্তমান কাউন্সিলর মোকসিমুল বারী অপু।
পুলিশ বলছে, হত্যার ঘটনায় ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে হত্যাকান্ড ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে নির্বাচন কেন্দ্রিক যে অভিযোগ তা খতিয়ে দেখা হবে।
নিহতের স্বজন ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পারভেজ যশোর পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী শফিকুল ইসলাম সোহাগের প্রচারণা করছিলেন।

মঙ্গলবার রাতে প্রচারণা চালিয়ে বউবাজার এলাকার বাদল মোল্লার চায়ের দোকানে গিয়ে বসেন তিনি। এসময় সেখানে চারজনের সাথে তার বাকবিতন্ডা হয়। একাপর্যায়ে তারা তাকে ধাওয়া দিয়ে তসিলমের বাড়ির সামনে নিয়ে কুপিয়ে জখম করে ফেলে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনার পর থেকে এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। স্থানীয়রা উৎসুক হয়ে ক্রাইম সিন দেখতে আসলেও হত্যার বিষয়ে কেউ মুখ খুলছে না।

পারভেজ যে চা দোকানে চা পান করছিল সেই দোকানের মালিক বাদল মোল্লা জানান, গতকাল মঙ্গলবার এশার নামাজের পর কিছুসময় পর পারভেজ তার দোকানে এসে চা পান করে। এরপর চলে যায়।

চলে যাওয়ার পাচ মিনিট পর শুনতে পান সে খুন হয়েছে। এরপর পুরো এলাকায় হইচই পড়ে যায়। পুলিশের ১০/১২টি গাড়ি আসে। আতংকে দোকান বন্ধ করে চলে যাই।

 

তিনি বলেন, পারভেজের সাথে কারোর কোন গোলযোগ তার দোকানের সামনে হয়নি। তবে তার দোকানের পাশে দুই তিন দিন আগে কাউন্সিলর প্রার্থী সোহাগের নির্বাচনী অফিস খোলা হয়েছে। পারভেজ সেখানে ওঠাবসা করতো।

স্থানীয় কয়েকজন নারী ও পুরুষ নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, এভাবেই কেউ কাউকে মারতে পারে? নান্টু, নূরুল, রকিসহ বেশ কয়েকজন পারভেজকে ধাওয়া করে নিয়ে যায়। তসলিমের বাড়ির সামনে পেঁৗছুলে তাকে কুপিয়ে হত্যা করে। পুলিশ ঘটনার পরপরই তসলিমের বাড়ির লোকজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে গেছে।

আজ দুপুর পর্যন্ত তারা বাড়িতে ফেরেনি।
এদিকে পারভেজ হত্যার পর তার মরদেহ দেখে অসুস্থ হয়ে পড়েন কাউন্সিলর প্রার্থী শফিকুল ইসলাম সোহাগ। মঙ্গলবার রাতেই তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

হাসপাতাল শয্যায় তিনি দাবি করেছেন বর্তমান কাউন্সিলর মোকসিমুল বারী অপু তাকে নির্বাচন থেকে সরে যেতে বলেছিলেন। এর দুইদিন পরই এ হত্যাকান্ড ঘটেছে।

পারভেজকে ষড়যন্ত্র করে হত্যা করা হয়েছে। ধাওয়া দিয়ে ওকে কুপিয়ে মেরেছে।অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করেছেন প্রতিপক্ষ প্রার্থী বর্তমান কাউন্সিলর মোকসিমুল বারী অপু। তিনি বলেন, প্রশ্নই ওঠে না।

আমি তাকে বসে যেতে বলবো কেন?তিনি আরো বলেন, আমি জীবনে কোনদিন কাউকে একটা থাপ্পড় মারতেও নির্দেশ দেয়নি। হত্যাতো অনেক দূরের কথা। বরং এরকম ষড়যন্ত্র আমার বিরুদ্ধে বহু হয়েছে। কিন্তু উপর আল্লাহর ইচ্ছায় সৎ পথে চলেছি, আল্লাহ আমাকে সব ষড়যন্ত্র থেকে মুক্ত করেছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তৌহিদুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় নিহতের পিতা তোতা মিয়া বাদী হয়ে ৯জনকে আসামি করে মামলা করেছেন। মামলায় ৬জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। বাকী তিন আসামি অজ্ঞাত পরিচয়ের।