চরভদ্রাসনে চোরাই মোটরসাইকেল উদ্ধার,স্বাস্থ্য সহকারীসহ গ্রেপ্তার দুই

CNNWorld24
CNNWorld24 Dhaka
প্রকাশিত: 12:09 AM, January 28, 2021

ফরিদপুর প্রতিনিধি ঃ ফরিদপুরের চরভদ্রাসনে চোরাই একটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে। এ চুরির
ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে একজন স্বাস্থ্য সহকারীসহ দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। চরভদ্রাসন সদর
ইউনিয়নের বিএস ডাঙ্গী গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স এর সামনে থেকে গত মঙ্গলবার বিকেল ৫ টার
দিকে লাল রঙ্গের একটি পালসার (ঢাকা মেট্র ল- ২৭৪৭৩৫) চোরাই মোটর সাইকেল উদ্ধার করেছে চরভদ্রাসন
থানা পুলিশ। এ চুরি সাথে সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগে রাফিউজ্জামান রানা (২২) ও চরভদ্রাসন উপজেলা
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর স্বাস্থ্য সহকারী আসাদ খান (৩০) কে আটক করে বুধবার ১২ টার দিকে আদালতে প্রেরণ
করা হয়েছে।

২০১৭ সালের ১৭ আগস্ট ঢাকার সোহরাওর্দী উদ্যানের একটি রাজনৈতিক সভা থেকে সাভার
জেলার বাসিন্দা মুস্তাফিজুরের একটি মোটর সাইকেলটি চুরি হয়ে যায়। ঐ সময় তিনি সাভার থানায়
একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। গত মঙ্গলবার সোহরাওর্দী উদ্যান থেকে চুরি হওয়া ওই মোটর
সাইকেলসহ বিএস ডাঙ্গী গ্রামের মিজানুর রহমানের ছেলে রানাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তার দেওয়া
তথ্যমতে বালিয়াডাঙ্গী গ্রামের বাসিন্দা শাহজাহান খানের ছেলে স্বাস্থ্য সহকারী আসাদ খানকে
গ্রেপ্তার করা হয়।

চরভদ্রাসন থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. ফিরোজ আলী মোল্লা জানান, স্বাস্থ্য সহকারী আসাদ
একটি এফিডেভিট বের করে দেখিয়ে জানায়, তিনি বালিয়াডাঙ্গী গ্রামের সুরত আলী এর ছেলে
জাহিদ নামের এক ব্যক্তির কাছ থেকে গাড়ীটি কেনেন। জাহিদ বর্তমানে সৌদী প্রবাসী রয়েছে।
তিনি বলেন, ওই এফিডেফিট জাল বলে ধারণা করা হচ্ছে।

চরভদ্রাসন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাকারিয়াহোসেন জানান, এ ব্যাপারে ওই
মোটরসাইকেলের মালিক সাবারের মুস্তাফিজুর বাদী করে রাফিউজ্জামান ও আসাদকে আসামি করে গতকাল
বুধবার দুপুরে চুরি ও জালিয়াতির অভিযোগে চরভদ্রাসন থানায় একটি মামলাদায়ের করেছেন। ওই দুই
ব্যাক্তিকে গতকাল বিকেলে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

চরভদ্রাসন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা মো. হাফিজুর রহমান বলেন, আসাদ খান এ
কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্য সহকারী হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। এ মোটরসাইকেল চুরির সাথে তার যুক্ত হওয়ার
বিষয়টি প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সুপারিশ করা হবে।