তিউনিসিয়ার প্রধানমন্ত্রী হিচাম মেচিচিকে অপসারণ, পার্লামেন্ট স্থগিত

Desk Reporter
Desk Reporter
প্রকাশিত: ৯:১১ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২৬, ২০২১

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: তিউনিসিয়ার প্রধানমন্ত্রী হিচাম মেচিচিকে অপসারণ, পার্লামেন্ট স্থগিত।কোভিড-১৯ নোভেল করোনা ভাইরাস মহামারি নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ এবং অর্থনৈতিক পরিস্থিতি সামাল দিতে না পারায় পার্লামেন্ট স্থগিত করার পাশা-পাশি তিউনিসিয়ার প্রেসিডেন্ট কাইস সাইয়েদ প্রধানমন্ত্রী হিচাম মেচিচিকে অপসারণ করেছেন ।

বেশ কিছু শহরে সহিংস বিক্ষোভের পর স্থানীয় সময় -২৫ জুলাই রোববার নিজ বাসভবনে এক জরুরী বৈঠক শেষে প্রেসিডেন্ট এ ঘোষণা দেন।

-২৬ জুলাই- সোমবার তিউনিসিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে আলজাজিরা এক প্রতিবেদনে জানিয়েছেন, নতুন প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমে নির্বাহী ক্ষমতা প্রয়োগ করার উদ্যোগ নিয়েছেন প্রেসিডেন্ট কাইস সাইয়েদ, যা-২০১৪ সালের পর প্রেসিডেন্ট এবং পার্লামেন্টের মধ্যে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জিং সাংবিধানিক সংকট।

তিনি বিবৃতিতে বলেন, আমার এই ঘোষণায় কেউ যদি অস্ত্র হাতে তুলে নেওয়ার চিন্তা করে,আমি তাদের সতর্ক করছি যে, কেউ যদি গুলি চালায়, তবে সশস্ত্র বাহিনীও গুলির মাধ্যমেই তার কঠিন জবাব দেবে।

তিনি দাবি করেন, তার কাজ সংবিধানের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ এবং সংসদ সদস্যদের দায়মুক্তি স্থগিত করেছেন তিনি।

এর আগে, রোববার তিউনিসিয়ার বিভিন্ন শহরে হাজার হাজার মানুষের বিক্ষোভ হয়। বিক্ষোভে অংশ নিয়ে তারা করোনা ভাইরাস মহামারি নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ এবং দেশ ও জনগণের ভঙ্গুর অর্থনৈতিক অবস্থার জন্য সরকারকেই দায়ী করেন। আর এ সময় তারা সরকারে পদত্যাগ চেয়ে শ্লোগান দিতে থাকেন।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিক্ষোভকারীরা বেশ কয়েকটি বড় শহরে ক্ষমতাসীন দল এন্নাহাদার অফিসে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে । পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে হস্তক্ষেপ করলে পুলিশকে লক্ষ্য করেও পাথর ছুঁড়ে  তারা। এ সময় তারা প্রধানমন্ত্রী হিচেম মিচিচির পদত্যাগ এবং পার্লামেন্ট ভেঙ্গে দেয়ার দাবিও জানায় বিক্ষোভে অংশ নেয়া বিক্ষুব্ধ জনতা।

পরে প্রেসিডেন্ট কাইস সাইয়েদ এক জরুরী বৈঠকে পার্লামেন্ট ভেঙ্গে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

প্রসঙ্গত:২০১০-সালে সূচনা হওয়া আরব বসন্ত তিউনিসিয়াতেই শুরু হয়। এরপর থেকেই দেশটিতে বিরাজ করছে রাজনৈতিক অস্থিরতা ।