নয় ব্যক্তির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর ফায়ারিং স্কোয়াডে

Desk Reporter
Desk Reporter
প্রকাশিত: ৯:৪৩ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২১

আন্তর্জাতিক: ৯ ব্যক্তির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর ফায়ারিং স্কোয়াডে।দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়ার পর ইয়েমেনে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে ৯ ব্যক্তির। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা জানান, ইয়েমেনের সর্বোচ্চ রাজনৈতিক পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান সালেহ আস-সামাদের হত্যাকাণ্ডের সাথে যুক্ত থাকার অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত ৯ ব্যক্তির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে।

হুতি আনসারুল্লাহ আন্দোলন পরিচালিত ইয়েমেনের টেলিভিশন চ্যানেল আল-মাসিরা জানান, ইয়েমেনের ন্যাশনাল সালভেশন সরকার দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়া শেষে করে এ মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছেন। অভিযুক্ত ৯ ব্যক্তি সালেহ আস-সামাদের অবস্থান শত্রু পক্ষকে জানিয়ে দিয়েছিলেন।

আদালতে এ বিষয়টি সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ার পরই ১৮ সেপ্টেম্বর শনিবার সানা শহরের আত-তাহরির স্কয়ারে প্রত্যক্ষদর্শীদের উপস্থিতিতেই এই অভিযুক্তদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

হুতির পক্ষ থেকে এ বিষয়ে আরও জানানো হয়েছে, সামাদ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার দায়ে এ ৯ ব্যক্তি অভিযুক্ত ও দণ্ডিত হয়েছিলেন। তারা গুপ্তচরবৃত্তি এবং স্পর্শকাতর তথ্য সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটকে জানিয়ে সামাদের মৃত্যুতে ভূমিকা রেখেছিলেন বলে এ অভিযোগে বলা হয়েছিল।

রাজধানী সানায় সামাদের রক্ত সম্পর্কীয় আত্মীয়স্বজন ও হুতি নেতাদের উপস্থিতিতেই ফায়ারিং স্কোয়াডে তাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে।

সৌদি জোটের পাশা-পাশি আন্তর্জাতিকভাবেই স্বীকৃত যে, ইয়েমেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় বন্দর শহর ও এডেনভিত্তিক সরকারের অনুগত বাহিনীগুলোর বিরুদ্ধেও লড়াই করছেন হুতিরা।

২০১৮ সালের এপ্রিল মাসে সৌদি নেতৃত্বাধীন কথিত সামরিক জোটের ড্রোন হামলায় সালেহ আস-সামাদ নিহত হন। আর ওই হত্যাকাণ্ডে সহযোগিতা করার অপরাধেই-২০২০ সালের-২৪ আগস্ট হুদায়দার এক আদালত-১৬ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়।পরে উচ্চ আদালতে ৭জন খালাস পেয়ে যান আর বাকি ৯ জানের দণ্ড বহাল থাকে।

ইয়েমেনের সর্বোচ্চ সামরিক পরিষদ যা বর্তমানে রাজধানী সানা নিয়ন্ত্রণকারী প্রধান নির্বাহী সংস্থা। ২০১৮-সালের-১৯ এপ্রিল পর্যন্ত-১১ সদস্যবিশিষ্ট এ পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন সালেহ আস-সামাদ। আর তিনি নিহত হওয়ার পর মাহদি আল-মাশাত সালেহ আস-সামাদ এর স্থলাভিষিক্ত হন এবং এখন পর্যন্ত মাশাত এ পদে বহাল আছেন।