বিশ্বের বিলাসবহুল যে খাবার টি

Desk Reporter
Desk Reporter
প্রকাশিত: ১১:১৫ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ৩, ২০২১

স্বাস্থ্য ডেস্ক: বিশ্বের বিলাসবহুল যে খাবার টি। মানুষ জন্মের পর প্রথম মৌলিক যে চাহিদা পূরণের তাগিদ অনুভূত হয় তাহায় হলো খাদ্য।

তবে মানবসভ্যতার গতিবিধি যতই উন্নতির পথে এগিয়েছে খাদ্য কি তখন শুধুই প্রয়োজন হিসেবে থেকে গেছে এ বিশ্বব্রহ্মাণ্ডে? না বরং মানুষ যত অর্থনৈতিক উন্নতিসাধন লাভ করেছে তার দৈনন্দিন চাহিদা মাফিক খাদ্যের অধ্যায়ে যোগ হয়েছে নতুন বিলাসিতা।

বেঁচে থাকার জন্য খাদ্যের কোনোই বিকল্প নেই। কিন্তু খাদ্য কি শুধুই বেঁচে থাকার জন্যই? না, খানাদানা বিলাসিতারও অন্যতম একটি অনুষঙ্গ।

আমাদের এ পৃথিবীতে অনেক বিলাসবহুল খাবার আছে। তার মধ্যে একটি খাবারের নাম ক্যাভিয়ার।

আর এই ক্যাভিয়ার হচ্ছে একধরনের সামুদ্রিক মাছের ডিম। এই ডিমকে নোনাজল এবং চাটনিতে রসিয়ে নেয়া হয়। বিশ্বের সবচেয়ে সু-স্বাদু খাবারের মধ্যে ক্যাভিয়ার একটি অন্যতম।

শুধু যে কোটিপতিই হলেই এই খাবারের স্বাদ নেয়া যাবে তা কিন্তু নয়। বরং এ খাবার খেতে হলে আপনাকে জমাতে হবে অনেক টাকা! কারণটা হলো  বিশ্বের সবচেয়ে দামি খাবারগুলোর মধ্যেই রয়েছে এ খাবারটিও । দেখে কিন্তু সাধারণ মনে হলেও এর উপকারিতা রয়েছে অনেক।

বেলুজা স্টার্জেন মাছ থেকেই সবচে বিখ্যাত ক্যাভিয়ার এ খাবারটি আসে । এ বেলুজা স্টার্জেন মাছটি শুধু কাস্পিয়ান সাগর আর কৃষ্ণ সাগরেই দেখা মেলে। আর এ মাছ থেকেই ক্যাভিয়ার সংগ্রহ করে তা বাজারে পৌঁছে দেওয়ার কাজটি খুবই দুরূহ। সবচেয়ে বড় কথা আর মজার বিষয় হলো ক্যাভিয়ার খুবই দুষ্প্রাপ্য।

এখন এ মাছটি প্রায় বিপন্ন প্রজাতির। খুব কম মাছের ডিমই এখন বৈধভাবে বেচা-কেনা হয়। একটি বেলুজা স্টার্জেন মাছ ক্যাভিয়ার পূর্ণবয়স্ক হতে সময় লাগেযায় প্রায় ২০ বছর। আর এরপরই এ মাছ ডিম পাড়তে পারে। কিন্তু আশ্চর্যের বিষয়টি হলো, মাছটিকে হত্যা করে তবেই এ ডিম সংগ্রহ করতে হয়

ক্যাভিয়ারের কিছু আদি কথা রয়েছে সেগুলো হলো: ক্যাভিয়ার বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে বিলাসবহুল খাবারের তালিকায় শীর্ষস্থানে আছে। ক্যাভিয়ার শব্দটা এসেছে মূলত খাগ-আভার ফারসী শব্দ থেকে, যার অর্থ হলো মাছের ডিম উৎপাদনযন্ত্র। আর এটি মূলত স্টার্জেন মাছের ডিম।

সর্বপ্রথম পারস্যের লোকেরাই ক্যাভিয়ারের নিয়মিত ভোক্তা হয়ে ওঠেন, যারা কি না একে শক্তিবর্ধক হিসেবে বিশ্বাস করেন। পাশা-পাশি এটাও জানা যায় যে, প্রাচীন গ্রীকরা ক্যাভিয়ার আমদানি করে, যা কিনা আজকের দিনে সাউথার্ন ইউক্রেনে ক্রিমিয়া নামে পরিচিত লাভ করেছে। যেখানে এটি ছিলি একটি বিলাসবহুল দ্রব্যে আর যা সংরক্ষিত থাকত শুধুমাত্র অভিজাতদের জন্য।

তবে রোমানরা একে পথ্য হিসেবেও ব্যবহার করত। এ সু-স্বাদু খাবারটি মানুষের প্রাত্যহিক ভোজ বিলাস থেকে বিলুপ্ত হওয়া শুরু করে প্রায় মধ্যযুগে। যা পুনরায় ফিরে আসে-১২ শতকে, যখন রাশিয়ান মৎস্যজীবী এবং কৃষক সম্প্রদায় একে সহজলভ্য আমিষের উৎস হিসেবে ব্যবহার করা শুরু করেন। ক্যাভিয়ারের বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে জনপ্রিয় যে নাম তা হলো আলমাস।

আলমাস এমনি একটি ক্যাভিয়ার যা সর্বত্র বিক্রির জন্য নয়। এটি পেতে হলে আপনাকে অবশ্যই বাছাইকৃত অভিজাত কিছু ক্যাভিয়ার স্টোরে যেতে হবে। আর বিক্রি ও পরিবেশনের দিক থেকেও এটি ব্যতিক্রম ধরনের।

ক্যাভিয়ার এমনি এক ধাতব পাত্রে বিক্রি করা হয় যা- ২৪ ক্যারেট সোনা দিয়ে তৈরী। এটি পরিবেশনের জন্য সবচে ভালো উপায় হচ্ছে বরফযুক্ত অধাতব বা কাচের পাত্রে উপযুক্ত তাপমাত্রায়। নিজস্ব স্বাদ ও ঘ্রাণ অটুট রাখতেই এটি সাধারণত ধাতব পাত্রে পরিবেশন করা হয় না। এক কি:গ্রাম ক্যাভিয়ারের দাম পড়তে পারে প্রায়-২৫,০০০ মার্কিন ডলারেরও ঊর্ধ্বে। এ ডিমগুলোর স্বাদ ও ঘ্রাণ অনেকটাই বাদামের মতো এবং খুবি মোলায়েম।