শুরু হওয়া লড়াইয়ের ‘সামনে থেকে’ নেতৃত্ব’র শপথ ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রীর

Desk Reporter
Desk Reporter
প্রকাশিত: ৪:০২ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৩, ২০২১

অনলাইন ডেস্ক: নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ বলেছেন, মঙ্গলবার শুরু হওয়া লড়াইয়ে তিনি তার দেশের সেনাবাহিনীকে “সামন থেকে” নেতৃত্ব দেবেন।তিনি এই নতুন নাটকীয় পদক্ষেপের কথা বলেন বছরজুড়ে চলা সংঘর্ষে যখন টাইগ্রে বিদ্রোহীরা ক্রমাগত রাজধানী আদ্দিস আবাবার দিকে এগিয়ে আসছে তখনই।

সোমবার টুইটারে দেওয়া এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, “আমি আগামীকাল থেকে প্রতিরক্ষা বাহিনীর নেতৃত্ব দেব। আমি ইথিওপিয়ার সেই সন্তানদের বলছি যারা ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে থাকবে, আজ দেশের জন্য নিজেকে জাগিয়ে তুলুন। লড়াইয়ের সামনে দেখা হবে। খবর আল জাজিরার।

৪৫ বছর বয়সী প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মঙ্গলবার তিনি কোথায় যাবেন তা বলেননি। এই ব্যাপারে তার মুখপাত্র বিল্লেন সেয়ুমের সাথে অ্যাসোসিয়েট প্রেস যোগাযোগ করলেও কোনো মন্তব্য করেননি তিনি।

বিদ্রোহী টাইগ্রিস পিপলস লিবারেশন ফ্রন্ট (টিপিএলএফ) ধারাবাহিকভাবে রাজধানীতে অগ্রসর হচ্ছে এবং আবি রাজধানী থেকে সড়কপথে ২২০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত শহর শেওয়া রবিটের নিয়ন্ত্রণের দাবিতে এই মন্তব্য করেছেন। এর আগে দ্বন্দ্ব নিয়ে আলোচনায় বসেছিল ক্ষমতাসীন দলের কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠক।

বৈঠকের পর, দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রী আব্রাহাম বেলে, রাষ্ট্র-চালিত মিডিয়াকে বিশদ বিবরণ না দিয়ে বলেছেন যে নিরাপত্তারক্ষীদের বিভিন্ন কাজে নিয়োগ করা হবে। আমরা এটা চলতে দিতে পারি না। তার মানে পরিবর্তন আসছে। মানুষের কী হয়েছে আর কী হচ্ছে, এই ধ্বংসাত্মক, সন্ত্রাসী, ডাকাত দলের এই ভয়াবহতা চলতে পারে না।

দেশটির উত্তর টাইগ্রিস অঞ্চলে বিদ্রোহী যোদ্ধা এবং ইথিওপিয়ান সরকার ও তাদের মিত্রদের মধ্যে সংঘর্ষে হাজার হাজার মানুষ নিহত হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। টাইগ্রিস অঞ্চলের এই বিদ্রোহী যোদ্ধারা আবি আহমেদ ক্ষমতায় আসার আগে দেশটির জাতীয় সরকার নিয়ন্ত্রণ করত।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং অন্যান্য দেশগুলি সতর্ক করেছে যে আফ্রিকায় চলমান সংঘাত, বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ, বাকি অঞ্চলকে ধ্বংস করতে পারে।

উইলিয়াম লরেন্স, একজন মার্কিন কূটনীতিক, আবিরের মন্তব্যে মন্তব্য করেছেন, তিনি নোবেল শান্তি পুরস্কার জেতার জন্য যুদ্ধের অনেক ছবি ব্যবহার করেছেন, কিন্তু শুধুমাত্র যুদ্ধের ভয়াবহতার দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য। এখন আমরা দেখছি একজন নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী সবচেয়ে যুদ্ধবাজ ভাষা ব্যবহার করে শুধুমাত্র প্রতিরক্ষা নয়, জীবন ও মৃত্যুতেও বাজি ধরে।

অন্যদিকে টাইগ্রিসের মুখপাত্র গেতাচেই রেডা টুইট করেছেন যে আমাদের সৈন্যরা শ্বাসরুদ্ধকর (আবির তৈরি) পরিস্থিতি শেষ করার আগে লড়াই থেকে সরে আসবে না।

বিদ্রোহীরা বলছে, তারা টাইগ্রিস অঞ্চলের ৬০ লাখ মানুষের ওপর থেকে এক মাসব্যাপী অবরোধ তুলে নিতে ইথিওপিয়ান সরকারকে চাপ দিচ্ছে; তারাও পাশাপাশি আবিকে ক্ষমতাচ্যুত করতে চায়।