৭ উপায়ে শুষ্ক চোখের সমস্যা সমাধান হয়

Desk Reporter
Desk Reporter
প্রকাশিত: ১২:২৯ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৮, ২০২১

লাইফস্টাইল ডেস্ক: ৭ উপায়ে শুষ্ক চোখের সমস্যা সমাধান হয়। চোখের ওপরের  অংশে পাতলা একটি পানির স্তর থাকে। এই চোখের পানি,পানি- তেল- পিচ্ছিল মিউকাস এবং জীবাণুপ্রতিরোধী অ্যান্টিবডি দিয়ে তৈরী । চোখের গ্রন্থি থেকে যে কোন কারণেই পানি নিঃসরণ কম হলে চোখ স্বাভাবিকের তুলনায় শুষ্ক হয়ে পড়ে। এই সমস্যার একাধিক কারণের মধ্যে সব চেয়ে বড় কারণ হল কম্পিউটার বা মোবাইল স্ক্রিনে একটানা দীর্ঘ সময় ধরে তাকিয়ে থাকা।

শুষ্ক চোখের সমস্যা হলেই নানান অস্বস্তি আর জ্বালাপোড়া দেখা দিতে পারে। এতে করে আলো সহ্য করতে না পারা-ঝাপসা দেখা- লাল হওয়া কিংবা চোখের ভেতরে- বাইরে পিচ্ছিল আঠাল পদার্থ তৈরী হতে পারে। সে ক্ষেত্রে কিছু সহজ ঘরোয়া উপায়ে স্বস্তি মিলতে পারে এ সমস্যা থেকে।

গরম ভাপ: গরম ভাপ শুষ্ক চোখের ক্ষেত্রে কার্যকর। গরম ভাপ থেকে আর্দ্র তাপ স্বস্তি দিতে সহায়তা করে শুষ্ক চোখ থেকে । প্রথমে কিছু গরম পানি নিন। তাতে একটি পরিষ্কার কাপড় ভিজিয়ে তা ভালো করে পানি ঝরিয়ে নিন। এরপর ওই কাপড়টি চোখের পাতার ওপর রাখুন এবং খুব আলতো করে চাপুন, যাতে করে চোখের গ্রন্থিতে আটকে থাকা তেলগুলো খূব সহজেই বেরিয়ে আসে।

ঘন ঘন চোখের পাতা ফেলা: চোখের পাতা ঘন ঘন ফেলুন এবং কাজ করার সময় কিছুক্ষণের জন্যও হলেও  বিরতি নিন। কম্পিউটার বা ল্যাপটপে কাজ করার সময়-মোবাইল ফোন বা টেলিভিশন দেখার সময় বিরতি নেবার চেষ্টা করুন। কাজের মাঝে ঘন ঘন বিরতি নিলে আপনার চোখের আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে সহায়তা করতে পারে।

 

মধু:মধুতে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি ও অ্যান্টি-সেপটিক বৈশিষ্ট্য থাকে, যার ফলে শুষ্ক চোখের চিকিৎসার ক্ষেত্রে অত্যন্ত কার্যকরী। এটি সংক্রমণ প্রতিরোধ এবং লুব্রিকেশনও বৃদ্ধি করে। আর শুষ্ক চোখের ক্ষেত্রে খাঁটি মধু ব্যবহারের উপায় হলো:- প্রথমে ১/২ কাপ গরম পানি ঠান্ডা করে-১ টেবিল চামচ খাঁটি মধু মিশিয়ে নিন। এরপর ওই মিশ্রণে তুলা ভিজিয়ে দিনে ২-৩ বার ৫ মি: জন্য চোখের ওপর রাখুন।

দই: দই ভিটামিন-বি ও ডি সমৃদ্ধ। তাই খাদ্যতালিকায় অবশ্যই দই করুন। প্রতিদিন এই দই এক কাপ করে  খেতে পারলে, শুষ্ক চোখের সমস্যা থেকে মুক্তি মিলতে পারে।

শসা: শসা পানি ও ভিটামিনের দুর্দান্ত উৎস। এটি ড্রাই আইজের সমস্যা সমাধান করতে সহায়তা করে। এ জন্য প্রথমে একটি শসাকে গোল গোল টুকরা করে কেটে নিন। এরপর চোখের পাতার ওপর ওই টুকরা কিছুক্ষণ রেখে দিন। দিনে ৩ বার এই প্রক্রিয়াটি করা যেতে পারে।

গ্রিন টি:গ্রিন টি প্রাকৃতিক অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি রূপে কাজ করে আর চোখের ইনফেকশন প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে। প্রথমে ১ কাপ গরম পানিতে একটি গ্রিন টি ব্যাগ-১০ মি: জন্য ভিজিয়ে রাখুন। এরপর ঠান্ডা হলে, তাতে তুলা ভিজিয়ে ৫ মি: জন্য চোখের পাতার ওপর রাখুন। এই প্রতিকারটি দিনে বেশ কয়েকবার-ই করা যেতে পারে।

ঘুম:পর্যপ্ত ঘুমের অভাবও শুষ্ক চোখের অন্যতম সমস্যার কারণ হতে পারে। পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুম-কর্নিয়ার আর্দ্রতা ধরে রাখতে সহায়তা করে থাকে। প্রতিদিন তাই ৭-৮ ঘণ্টা ঘুমানোর চেষ্টা করুন।