এবার টানা ১৯ দিনের ছুটিতে দেশ!

Desk Reporter
Desk Reporter
প্রকাশিত: ৯:৪২ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২০, ২০২১

অনলাইন ডেস্ক: ঈদুল আজহা এবং পরবর্তীকালে করোনা’র বিধি-নিষিধের কারণে টানা ১৯ দিনের ছুটিতে পড়ছে দেশ। , ঈদের ছুটি, সাপ্তাহিক ছুটি এবং করোনা’ভাইরাস রোধে ঘোষিত বিধি-নিষিধের কারণে অফিস, গণপরিবহন ও শপিংমল দুটি সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে বন্ধ থাকছে।

সরকারি চাকরিজীবীদের ঈদের পরে ভার্চুয়াল অফিস করার নির্দেশ দেওয়া হলেও বেসরকারী চাকরিজীবীরা আগস্টের পুরো সপ্তাহটি ছুটি কাটাতে পারবেন।

২১ জুলাই (বুধবার) আগামীকাল দেশে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। মঙ্গলবার (২০ জুলাই) ঈদের ছুটি শুরু হয়। ঈদের তিন দিনের (২০, ২১ ও ২২) জুলাইয়ের পরে, ২৩ ও ২৪ জুলাই সাপ্তাহিক (শুক্রবার ও শনিবার) ছুটি থাকে।কাজেই, ঈদের ছুটিতে প্রত্যেকে পাঁচ দিনের ছুটি পাচ্ছেন।

অন্যদিকে, করোনা’র সংক্রমণ রোধ করতে ২৩ জুলাই ভোর ৬টা থেকে বিধি-নিষেধ আবারও চালু করা হচ্ছে। নিষেধাজ্ঞানটি ৫ আগস্ট মধ্যরাত অবধি চলবে অর্থাৎ, এখানে ১৪ দিনের বিধি-নিষেধ রয়েছে,এর কারণে সরকারী, আধা-সরকারী, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারী অফিস বন্ধ থাকবে ও সব শিল্প কারখানা – গণপরিবহন বন্ধ থাকবে।

শুক্রবার এবং শনিবার (৬ ও ৭ আগস্টa) সাপ্তাহিক ছুটি ৫ আগস্ট দিবাগত রাত ১২টার পর যদিও সরকারী অফিস সাপ্তাহিক ছুটিতে বন্ধ থাকলেও বেশিরভাগ বেসরকারী অফিস খোলা থাকে। তবে বেসরকারী অফিসের কার্যক্রম ৮ আগস্ট থেকে শুরু হবে, মূলত করোনা ‘র সংক্রমণের কারণে ঢাকা ত্যাগ করা লোকদের জন্য সুযোগ রেখে।

করোনা’র সংক্রমণের বৃদ্ধির কারণে, কঠোর বিধিনিষেধ গেল ১ জুলাই শুরু হয়েছিল এবং ১৪ জুলাই শেষ হয়েছে। এই নিষেধাজ্ঞার কারণে সরকারী, আধা-সরকারী, স্বায়ত্তশাসিত এবং বেসরকারী অফিস বন্ধ রয়েছে। সমস্ত শিল্প কারখানা এবং গণপরিবহন বন্ধ রয়েছে।

এরপরে ১৪ জুলাই ঈদ-উল-আযহা উদযাপন, গণপরিবহন, ঈদ-পূর্ব বাণিজ্য ও বাণিজ্য পরিচালনা, আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতি এবং দেশের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের স্বার্থে ১৪ জুলাই মধ্যরাত থেকে ২৩ জুলাই নিষেধাজ্ঞা শিথিল করা হয়েছিল।

ঈদের তৃতীয় দিনে সরকারী, আধা-সরকারী, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারী অফিস ২৩ শে জুলাই সকাল ৬টা থেকে ১২ আগস্ট মধ্যরাত পর্যন্ত বন্ধ থাকবে সেইসাথে সমস্ত শিল্প কারখানা ও গণপরিবহন বন্ধ থাকবে।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছেন, ঈদের পরে এই নিষেধাজ্ঞা আরো কঠোর হবে- শিল্প কারখানাও বন্ধ থাকবে।

পূর্বের ঘোষণায় মন্ত্রিসভা বিভাগের ১৩ ই জুলাইয়ের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সেনাবাহিনীসহ আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা ঈদর পর বিধি-নিষিধে’র পরে মাঠে থাকবেন।

যদিও করোনার সংক্রমণ রোধে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে, তবে ঈদে মানুষ বাড়ি ফেরাতে ঠেকানো সম্ভব হচ্ছে না ।গেল কয়েক’দিন থেকে বাড়িমুখী মানুষের স্রোত নেমেছে;’ ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার বলেছেন, ১৫ ও ১৬জুলাই ১৭ লাখ সিম ব্যবহারকারী ঢাকা ত্যাগ করেছেন।

ঈদের আগের শেষ কার্যদিবসের শেষে রাজধানীর বাসস্ট্যান্ড, রেলস্টেশন এবং লঞ্চ টার্মিনালে ভিড় ছিল চিত্তাকর্ষক ,জনতার ভিড়ে গাদাগাদি ঘরে ফিরতে দেখা যায়।

অন্যদিকে, ২১ শে জুলাই ঈদ শেষ হওয়ার পরে ২৩ শে জুলাই ভোর ৬ টা থেকে বিধি-নিষেধ’র কারণে, বাড়ি ফিরে বেশিরভাগ লোক ঈদের দিন এবং পরদিন ঢাকায় ফিরে আসবে, তাই আশঙ্কা রয়েছে যে সংক্রমণের ঝুঁকি আরও গুরুতর হবে। ঢাদে পশুরহাট বসানো’র সাথে এই আশঙ্কা আরো বেড়েছে।