বিজিবি ত্রি-মাত্রিক শক্তি হিসাবে গঠিত হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

CNNWorld24
CNNWorld24 Dhaka
প্রকাশিত: 1:51 PM, December 5, 2020

নিউজ ডেস্কঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আধুনিক প্রযুক্তি ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা ব্যবহারের মাধ্যমে বিজিবি ত্রি-মাত্রিক শক্তি হিসাবে গড়ে উঠেছে।

তিনি বলেন, আমরা আধুনিক যুগে প্রবেশ করেছি। বিজিবিও আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারে মনোনিবেশ করেছে। এই বাহিনী এখন সারা দেশে ঘোরাঘুরি করছে। বিজিবিকে আরও জোরদার করার জন্য আমরা ইতিমধ্যে ‘বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ ভিশন ২০৪১’ প্রণয়ন করেছি এবং এর বাস্তবায়ন শুরু করেছি। হেলিকপ্টারগুলি এই উদ্দেশ্যে ক্রয় করা হয়েছে, ভাল মানের জাহাজ নেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি আরও ১৫,০০০ জনশক্তি ধাপে ধাপে নেওয়া হবে বলে প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন।

৫ ডিসেম্বর (শনিবার) বেলা ১০.৩০ নাগাদ চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় সীমান্তরক্ষী প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও কলেজের (বিজিটিসি ও সি) বিরিউতম মজিবুর রহমান প্যারেড গ্রাউন্ডে বিজিবির ৯৫ তম রিক্রুট ব্যাচের সমাপনী প্যারেডে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ মন্তব্য করেন।

প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধান অতিথি হিসাবে অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে প্যারেডে শুভেচ্ছা গ্রহণ করেন। তরুণ সেনাদের শপথ গ্রহণ ও কুচকাওয়াজ আনুষ্ঠানিকভাবে সকাল সাড়ে দশটায় প্রধানমন্ত্রীর রাষ্ট্রীয় সালাম দিয়ে শুরু হয়েছিল।

তিনি বলেছিলেন, ‘শৃঙ্খলা হ’ল যে কোনও বাহিনীর সৈনিকের মূল পরিচয়। বাংলাদেশ একটি আদর্শ নিয়ে স্বাধীন হয়েছে। তিনি একজন সত্যিকারের সৈনিক যিনি এই আদর্শ, আদেশ ও কর্তব্য অনুসরণ করতে কখনও পিছপা হন না। ‘

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সততা, বুদ্ধি, বিশ্বাসযোগ্যতা, আনুগত্য, জোর এবং উৎঔসাহ একটি বাহিনীর শৃঙ্খলা ও পেশাদারিত্বের মানদণ্ড। তরুণ সৈন্যদের মধ্যে এই গুণগুলির প্রতিচ্ছবি প্রত্যেককে অনুপ্রাণিত করেছে এবং মুগ্ধ করেছে। একই সাথে প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতার আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে বিজিবির নীতিগুলিকে গুরুত্ব দেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছিলেন।

ঐতিহাসিকভাবে, আজ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের পক্ষে একটি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ দিন,” তিনি বলেছিলেন। আজ থেকে ৪৬ বছর আগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিডিআরের তৃতীয় রিক্রুট ব্যাচের সমাপনী কুচকাওয়াজ ও সালাম গ্রহণ করেন। সময়ের সাথে সাথে প্রধানমন্ত্রী মুজিবের জন্মশতবার্ষিকীতে একই দিন এবং মুহুর্তে ৯৫ তম রিক্রুট ব্যাচের সমাপনী প্যারেডে অভিনন্দিত হয়ে গর্বিত ও আশীর্বাদ বোধ করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘৭৫-এর পরে ক্ষমতায় আসা যে কোনও সরকারই ভারতের সাথে সীমান্তরক্ষী সমস্যা সমাধানে কোন উদ্যোগ নেয়নি। আমি ১৯৯ ১৯৯৬ সালে সরকারে আসার পরে এই সমস্যাটি সমাধান করেছি। আমরা উন্মুক্ত সীমানায় একটি নতুন কাঁটাতারের বেড়া তৈরি করেছি এবং নতুন পোস্ট তৈরি করে সীমান্ত সুরক্ষিত করেছি। ‘

পরে প্রধানমন্ত্রী তরুণ সৈন্যদের তাদের নতুন জীবনে স্বাগত জানান। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে মহাপরিচালকের প্যারেড শেষে ৯৫ তম রিক্রুট ব্যাচের সেরা স্মার্ট নিয়োগ হিসাবে প্রথম স্থানের রিক্রুট (জিডি) মো। খোকন মোল্লার হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন।

বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোঃ সাফিনুল ইসলাম, বিজিবিএম (বার), এনডিসি, পিএসসি স্বাগত বক্তব্য রাখেন। বিশেষ অতিথি হিসাবে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, জন সুরক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।