সংসদে বিল পাস,মিথ্যা তথ্যে ঋণ নিলে ৫ বছর জেল

Desk Reporter
Desk Reporter
প্রকাশিত: ৭:০৫ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৮, ২০২১

অনলাইন ডেস্ক: বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন (বিএইচবিএফসি) থেকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে ঋণ নেওয়ার শাস্তি বাড়ানোর বিল জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে।

পাঁচ বছরের কারাদণ্ড ও পাঁচ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রেখে বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন (সংশোধন) বিল-২০২১ নামে এটি পাস হয়।

বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) অর্থমন্ত্রী আহম মুস্তফা কামাল বিলটি পাসের প্রস্তাব করলে তা কণ্ঠভোটে পাস হয়। অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী।

চলতি বছরের জুনে বিলটি সংসদে উত্থাপন করা হলে তা যাচাই-বাছাই করে সংসদে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়।

বর্তমান আইনে বলা হয়েছে যে কেউ যদি ইচ্ছাকৃতভাবে মিথ্যা বিবরণ দেয় বা কর্পোরেশন থেকে ধার নেওয়ার ক্ষেত্রে জ্ঞাতসারে মিথ্যা বিবরণ ব্যবহার করে বা কর্পোরেশনের সাথে কোনও ধরণের জামানত নিয়ে জড়িত থাকে তবে তার দুই বছরের কারাদণ্ড, দুই হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবে। এ বিলে তা বাড়িয়ে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড এবং পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত জরিমানা করা হয়েছে।

এছাড়া লিখিত সম্মতি ছাড়া প্রসপেক্টাস বা বিজ্ঞাপনে বিএইচবিএফসির নাম ব্যবহার করলে আগে ছয় মাসের কারাদণ্ড ও এক হাজার টাকা জরিমানা ছিল। জরিমানা বাড়িয়ে ৫০ হাজার টাকা করা হয়েছে।

বিদ্যমান আইনের অধীনে অনুমোদিত মূলধন ছিল ১১০ কোটি টাকা এবং পরিশোধিত মূলধন ছিল ১১০কোটি টাকা। প্রস্তাবিত আইনে অনুমোদিত মূলধন হিসাবে এক হাজার কোটি টাকা এবং পরিশোধিত মূলধন হিসাবে ৫০০কোটি টাকা দেওয়ার বিধান রয়েছে।

পাস হওয়া বিলে বলা হয়েছে, সরকারের সন্তুষ্টি সাপেক্ষে পরিচালকের মেয়াদ তিন বছরের কম সময়ের জন্য বলবৎ থাকবে। কর্পোরেশন সরকারের কাছ থেকে দীর্ঘ মেয়াদী ঋণ নিতে পারবে।

বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ সম্পর্কে অর্থমন্ত্রী বলেন, কর্পোরেশনের কাজের পরিধি বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে অনুমোদিত ও পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ বাড়ানো হয়েছে, পরিচালনা পর্ষদের গঠন সুনির্দিষ্ট করা হয়েছে, ক্ষমতার বিকেন্দ্রিকরণ, তহবিল সংগ্রহের লক্ষ্যে দেশীয়-আন্তির্জাতিক ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি সম্পাদনসহ ঋণ গ্রহণ, অপরাধের শাস্তির পরিমাণ বৃদ্ধি, অপরাধের আমলযোগ্যতা, জামিনযোগ্যতা, ফৌজদারি কার্যবিধির প্রয়োগ এবং অর্ধদণ্ড আরোপের ক্ষেত্রে ম্যাজিস্ট্রেটের বিশেষ ক্ষমতা প্রয়োগের বিধান সংযোজনসহ অন্য সরকারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে ক্ষমতার অন্যান্য সরকারি সংস্থার সাথে সামঞ্জস্য রেখে বিদ্যমান আইনগুলিকে সংশোধন করার উদ্দেশ্যে করা হয়েছে।