থার্টি ফার্স্ট নাইটে ডিএমপির ১৩ নির্দেশনা

CNNWorld24
CNNWorld24 Dhaka
প্রকাশিত: 10:26 PM, December 29, 2020

নিজস্ব সংবাদদাতাঃ ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) থার্টিফার্স্ট খ্রিস্টান নববর্ষ উদযাপন সংক্রান্ত ১৩ দফা নির্দেশনা জারি করেছে, যার মধ্যে ভবনগুলির ছাদে উৎসব আয়োজন নিষিদ্ধ রয়েছে। তারা আতশবাজি, বেপরোয়া গাড়ি চালানো ও বেপরোয়া গাড়ি চালানো সহ যে কোনও ধরণের অসদাচরণ ও অবৈধ কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার জন্য অনুরোধ করেছেন।

মঙ্গলবার ১৩ দফা নির্দেশে ডিএমপি এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ অনুরোধ জানায়। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ঢাকা মহানগর পুলিশ নতুন বছর উদযাপনের সময় আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির যে কোনও হুমকি প্রতিরোধে বদ্ধপরিকর। নির্দেশনা না মানলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের আইনের আওতায় আনা হবে।

ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এই নির্দেশনায় বলেছেন-

১.ঢাকা মহানগরীর সামগ্রিক সুরক্ষা ও আইন শৃঙ্খলার স্বার্থে রাস্তা মোড়, ফ্লাইওভার, রাস্তাঘাট, বিল্ডিংয়ের ছাদ এবং পাবলিক প্লেসে কোনও সমাবেশ / অনুষ্ঠান করা যাবে না।

২. নববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে উন্মুক্ত স্থান বা নৃত্য, গান এবং কোনও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে কোনও ধরণের বা সমাবেশ করার অনুমতি নেই।

৩. যে কোনও জায়গায় কোনও ধরণের আতশবাজি স্থাপন করা যাবে না।

৪. সন্ধ্যা ৬ টার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় কোনও বহিরাগত বা যানবাহন প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না।

৫. ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক এলাকায় বসবাসরত শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের যানবাহন নির্ধারিত সময়ের পরে চিহ্নিতকরণের জন্য শাহবাগ ক্রসিংয়ের মাধ্যমে প্রবেশ করতে সক্ষম হবে।

৬. বাইরের লোকরা রাত ৮ টার পরে গুলশান ও বনানী অঞ্চলে প্রবেশ করতে পারবে না। তবে, এই অঞ্চলে বসবাসকারী নাগরিকরা নির্ধারিত সময়ের পরে কমল আতাতুর্ক অ্যাভিনিউ (কাকলি ক্রসিং) এবং মহাখালী আমতলী ক্রসিংয়ের মাধ্যমে সনাক্তকরণের সাপেক্ষে প্রবেশ করতে পারবেন।

৭. একইভাবে সামগ্রিক সুরক্ষার স্বার্থে গুলশান, বনানী, বারিধারা এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক অঞ্চলের অনাবাসিকদের উল্লিখিত সময়কালে এলাকায় প্রবেশ করতে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে।

৮. রাত ৮ টার পরে কাউকে হাতিরঝিল এলাকায় থাকতে দেওয়া হবে না।

৯. গুলশান, বনানী ও বারিধারা অঞ্চলে বসবাসরত নাগরিকদের ৩১ শে ডিসেম্বর রাত ৮ টার মধ্যে তাদের নিজ নিজ এলাকায় ফিরে আসতে অনুরোধ করা হয়েছে।

১০. ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬ টার পরে ঢাকা মহানগরের কোনও বার খোলা রাখা যাবে না।

১১. রাত ১০ টার পর সকল ফাস্টফুডের দোকান বন্ধ হয়ে যাবে।

১২. সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার সময় আবাসিক হোটেলগুলিতে সীমিত আকারে নিজস্ব ব্যবস্থাপন করতে সক্ষম হবে। তবে ডিজেগুলিকে কোনওভাবেই পার্টির অনুমতি দেওয়া হবে না।

১৩. সংশ্লিষ্ট নগরবাসীকে ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬ টা থেকে ১ জানুয়ারী সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত ঢাকা মহানগরের বিভিন্ন আবাসিক হোটেল, রেস্তোঁরা, পাবলিক সমাবেশ এবং উৎসব স্থানগুলিতে সকল প্রকার লাইসেন্সযুক্ত আগ্নেয়াস্ত্র বহন না করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।