সিইসির বিরুদ্ধে ১০ আইনজীবীর দুদকে অভিযোগ দাখিল

CNNWorld24
CNNWorld24 Dhaka
প্রকাশিত: 12:45 PM, January 7, 2021

বিশেষ প্রতিবেদকঃ জাল বিলের মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ করার জন্য প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ পাঁচ ইসি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের ১০ আইনজীবী দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) অভিযোগ দায়ের করেছেন।

বৃহস্পতিবার সকালে অ্যাডভোকেট শিশির মুহাম্মদ মনিরসহ সুপ্রিম কোর্টের ১০ জন আইনজীবী দুদকের চেয়ারম্যানের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

শিশির মনির সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

অভিযোগে বলা হয়েছে, অর্থ মন্ত্রনালয়ের অনুমোদন ও নির্বাচন কমিশনের নীতিমালা ছাড়াই ৭ কোটি ৪৭ লক্ষ ৫৭ হাজার টাকা খরচসহ প্রশিক্ষণের নামে সরকারি অর্থ ক্ষতি করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা নেতৃত্বে বর্তমান ইসির বিরুদ্ধে ৪২ জন বিশিষ্ট নাগরিক গুরুতর দুর্ব্যবহার, আর্থিক দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ এনেছেন। তারা বিষয়টি তদন্ত করতে এবং ১৪ ডিসেম্বর পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল গঠন করেছিলেন এবং রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ’র কাছে একটি লিখিত দাবি করেছেন। তারা সরাসরি এই বিষয়ে আলোচনা করার জন্য রাষ্ট্রপতির সাথে দেখা করার জন্য সময় চেয়ে অনুরোধ করেছিলেন।

এর পরে, বিশিষ্ট ব্যক্তিরা ১৯ ডিসেম্বর একটি সংবাদ সম্মেলনে বিষয়টি প্রকাশ করেন। এতে বলা হয়েছে যে, বর্তমান ইসি দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই বিভিন্নভাবে মারাত্মক অসদাচরণে জড়িত ছিল। এগুলো গুরুতর আর্থিক দুর্নীতি এবং অনিয়মের সাথে যুক্ত হয়েছে, যা একটি অনিষ্টযোগ্য অপরাধ।

ইসির বিরুদ্ধে অভিযোগ: রাষ্ট্রপতির কাছে আবেদনে ৯ ধরণের অভিযোগ রয়েছে। একটি হ’ল আর্থিক অনিয়ম এবং অন্যটি নির্বাচনী অনিয়ম।
দুর্নীতি ও অর্থ সম্পর্কিত তিনটি অভিযোগ রয়েছে – ১. আর্থিক অসদাচরণ এবং ‘বিশেষ বক্তা’ হিসাবে বক্তব্য দেওয়ার নামে দুই কোটি টাকা নেওয়ার মতো অনিয়ম। নির্বাচন কমিশনের কর্মীদের নিয়োগ প্রক্রিয়ায় ৪ কোটি ৮০ লাখ অসদাচরণ ও অনিয়ম এবং ৩ কমিশনার তিনটি গাড়ি অবৈধভাবে ব্যবহারে আর্থিক অনাচার ও অনিয়ম। নির্বাচনের সাথে সম্পর্কিত ৬ টি অভিযোগ – ১. ইভিএম ক্রয় ও ব্যবহারে গুরুতর অসদাচরণ এবং অনিয়ম, ২। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের গুরুতর অসদাচরণ এবং অনিয়ম, ৩. ঢাকা (উত্তর ও দক্ষিণ) সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে গুরুতর দুর্বৃত্ততা এবং অনিয়ম, ৪. খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে গুরুতর দুরাচরণ ও অনিয়ম, গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে গুরুতর দুরাচরণ ও অনিয়ম, ৫ গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে গুরুতর অনিয়ম ও  অসদাচরণ  এবং ৬. সিলেট, বরিশাল ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে গুরুতর অসদাচরণ ও অনিয়মের অভিযোগ।