হতাশা থেকে বাঁচবেন কিভাবে, জেনে নিন-

Desk Reporter
Desk Reporter
প্রকাশিত: ৫:২৬ অপরাহ্ণ, জুন ২১, ২০২১

জীবনে হতাশ না হওয়ার একটাই উপায়, আল্লাহ ব্যতীত কারো কাছ থেকে কোন কিছু আশা না করা। এতে সুবিধা হল, যা পাওয়া যায় জীবনে তার জন্য খুব সহজেই শুকরিয়া আদায় করা যায়, আর যা হয়তো পাওয়ার যোগ্যতা থাকা স্বত্ত্বেও পাওয়া গেল না তা আল্লাহর ফয়সালা মেনে ও মনে নিয়ে প্রশান্তি পাওয়া যায়।

জীবনে চলার পথে অনেক অনেক আশা ভঙ্গের ঘটনা ঘটে। বাবা মা আমাকে বোঝে না, শিক্ষকরা বকাঝকা করে, যা চাই তা কেউ দেয় না, যে জবের স্বপ্ন দেখি তা অধরা, প্রোমোশন পাওয়ার যোগ্য কিন্তু পেলাম না, প্রতিবেশিরা তাচ্ছিল্য করছে, বন্ধুদের গ্রুপে আমাকে নিয়ে হাসাহাসি করছে, ও আমার চেয়ে কম যোগ্য হয়েও ভালো আছে, কর্মক্ষেত্রে প্রাপ্য সম্মান ও সুবিধা পাচ্ছি না এসব ছোট খাটো আশা ভঙ্গের সাথে সাথে আরো কঠিন, জটিল আর ভয়ানক আশা ভঙ্গের ঘটনা আমাদের জীবনে ঘটে।

আমরা ভেঙে পড়ি, নিরাশা হই, বিচলিত হই, ঝগড়া করি, মারামারি করি, আত্মহত্যা করি, মানসিকভাবে বিপদগ্রস্থ হই, বিপথগ্রস্থও হই। এইসব থেকে এক লহমায় নিজেকে বের করে ফেলা যায়। শুধু যদি নিজেকে এ-ই বুঝটা দেয়া যায় দুনিয়াতে আল্লাহ ছাড়া কেউ আমার অন্তর বুঝবে না, তিঁনি সব জানেন, তিঁনি বোঝেন, তিঁনি আমার সাথে হওয়া অন্যায় দেখছেন এবং তিঁনি অবশ্যই দুনিয়া ও আখিরাতে এ ব্যাপারে মীজানের পাল্লায় হিসাব করে ফয়সালা দেবেন, তাই আল্লাহ ব্যতীত কারো কাছ থেকে কোন আশা নেই।

আর সাথে এটা বিশ্বাস করা যে নিজের আপনজন থেকে শুরু করে দূরের পর্যন্ত সকলেই যেকোন দিন যেকোন সময় আমার আশাভঙ্গের কারন হতে পারে। তাই সেটা যদি না হয় তাহলে আলহামদুলিল্লাহ, আর যদি তারা হতাশার কারন হয়েই যায় তখন আগে থেকেই তৈরি থাকার ফলে অন্তর সেটা দ্রুতই তা গ্রহণ করে নিতে পারে, ফলাফল তাতেও আলহামদুলিল্লাহ।

জীবন নিয়ে হতাশায় থাকা অনেকেই জিজ্ঞেস করে আপু কিভাবে এত কষ্ট সহ্য করবো?

সকলের জন্য আমার উত্তর একটাই। দুনিয়াতে যে কেউ সে মা, বাবা ভাই, বোন, স্বামী বা সন্তান, প্রতিবেশী, বন্ধু, সহকর্মী বা পথচারী যে কেউ হতে পারে যে আপনাকে হতাশ করেছে, যার কাছ থেকে প্রত্যাশা ছিল পূরণ করেনি, হয়তো আপনার সামনেই অন্যেরটা করেছে আপনারটা করেনি, এট খুবই স্বাভাবিক।

কারন মানুষ আঘাত করতে পারে, আল্লাহ তাঁর বান্দাকে কখনই আঘাত করবেন না, ইনশা আল্লাহ। তাই আল্লাহ ব্যতীত অন্য যেকারো কাছ থেকে প্রত্যাশা করা ভুলে যান, হতাশাও আপনাকে ভুলে যাবে, ইনশা আল্লাহ।