চাকরিতে আপাতত বয়স বাড়ানোর পরিকল্পনা নেই:প্রতিমন্ত্রী

Desk Reporter
Desk Reporter
প্রকাশিত: ৩:২৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১

নিউজ ডেস্ক: সরকারী চাকরিতে আপাতত বয়সসীমা বাড়ানোর কোন পরিকল্পনা নেই বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

১৪ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তরে বিএনপি’র সাংসদ মোশাররফ হোসেনের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উত্থাপিত হয়।

প্রতিমন্ত্রী জানান , বর্তমানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে উল্লেখযোগ্য সেশনজট নেই। আর করে শিক্ষার্থীরা সাধারণত-১৬ বছরে এসএসসি, ১৮ বছরে এইচএসসি এবং-২৩-২৪ বছরে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করে থাকেন। সাধারণ প্রার্থীদের জনুষ চাকরিতে প্রবেশের সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩০ বছর। তাই স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের পরও তারা চাকরিতে আবেদনের জন্য অন্তত ৬-৭ বছর সময় পেয়ে থাকেন। এছাড়া-৩০ বছর বয়সসীমার মধ্যে ১জন প্রার্থী চাকরির জন্য আবেদন করলে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হতে  প্রয়-২/১ বছর সময় লাগলেও তা গণনা করা হয় না।

ফরহাদ হোসেন জানান, চাকরি থেকে অবসরে যওয়ার বয়সসীমা -৫৭ হতে ৫৯-বছরে উন্নীত হওয়ার ফলে বর্তমানে শূন্যপদের সংখ্যা স্বাভাবিকভাবেই কমেছে। আর এরই প্রেক্ষাপটে চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বৃদ্ধি করা হলে বিভিন্ন পদের বিপরীতে চাকরিপ্রার্থীদের সংখ্যা ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাবে। যার ফলে নিয়োগের ক্ষেত্রেও বেশি প্রতিযোগিতার সৃষ্টি হতে পারে। আর এতে করে যাদের বয়স বর্তমানে-৩০ বছরের বেশি তারা চাকরিতে আবেদন করার সুযোগ পেলেও-৩০ এর কম বয়সী প্রার্থীদের মধ্যে হতাশার সৃষ্টি হতে পারে। এ কারণে চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বৃদ্ধির কোনো পরিকল্পনা আপাতত সরকারের নেই।

এই সময় তিনি আরও বলেন,করোনা পরিস্থিতির কারণে বিসিএস বাদে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় এবং বিভাগ বিভিন্ন ক্যাটাগরির সরকারী চাকরিতে সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রেও বিজ্ঞপ্তী প্রকাশ করতে পারেননি, সে সব প্রতিষ্ঠানকে আগামী-৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রকাশিতব্য নিয়োগ বিজ্ঞপ্তীতে প্রার্থীদের সর্বোচ্চ বয়সসীমা-২৫ মার্চ-২০২০ তারিখ নির্ধারণ করার অনুরোধ করা হয়েছে।