মাদ্রাসায় শিক্ষার্থী ১২-শিক্ষক-কর্মচারী ২০

Desk Reporter
Desk Reporter
প্রকাশিত: ১০:০৫ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০২১

ওয়েব ডেস্ক: মাদ্রাসায় শিক্ষার্থী ১২ জন হলেও শিক্ষক-কর্মচারী ২০। দীর্ঘ ৩৫ বছর ধরে এভাবেই চলছে রংপুরের পীরগঞ্জে ছাতুয়া দ্বিমুখী দাখিল মাদ্রাসাটি। তবে শিক্ষকদের দাবি-২০০ শিক্ষার্থী আছে। জমি দখল, নারী নির্যাতনসহ নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে মাদ্রাসাটির অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে।

রংপুরের পীরগঞ্জে ৬ কক্ষের দোচালা টিনশেড ছাতুয়ায় এই মাদ্রাসা। মাদ্রাসাজুড়ে পাওয়া গেল ১২ শিক্ষার্থীকে। শিক্ষকের কেউই জানাতে পারেননি মাদ্রাসার প্রকৃত শিক্ষার্থীর সংখ্যা কত । একজন শিক্ষক ২০০ শিক্ষার্থীর দাবি করলেও কাগজপত্রে তার চেয়ে আরও বেশি দেখানোর কথা জানালেন অকপটে।

নিজেই নিয়োগ কমিটির সচিব হয়ে স্ত্রীকে কম্পিউটার শিক্ষিকা পদে নিয়োগের অভিযোগ আছে এই অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে। যদিও সরকারের দেয়া ৩টি কম্পিউটার খুঁজে পাওয়া গেল না।

অন্যের জমি জবর দখল-শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীদের যৌন হয়রানি- গোপনে কমিটি গঠন-বিভিন্ন পদে নিয়োগের কথা বলে টাকা হাতিয়ে নিয়ে আত্মসাৎ আর নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে প্রহসনের অভিযোগ এই সব ভুক্তভোগীদের।

অধ্যক্ষ একেএম শহীদুল ইসলামকে তার অফিস কক্ষে পাওয়া না গেলেও খোঁজ মেলে উপজেলা সদরে একটি রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে। তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের সবই নাকি মিথ্যা বলে দাবি তার।

মাঠ পর্যায়ে মাদ্রাসা বোর্ডের কার্যক্রম না থাকায় জেলা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা কার্যালয় কিছু বিষয় দেখভাল করলেও এই মাদ্রাসা সম্পর্কে কোনোই তথ্য নেই। আর জেলা প্রশাসক আসিব আহসান জানালেন, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেবেন।

১৯৮৫-সালে প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসাটিতে শিক্ষার্থী ও শিক্ষার মান না বাড়লেও অধ্যক্ষ হিসাবে যোগ দেয়ার পর বছর বছর শিক্ষক এবং কর্মচারী ঠিকই বাড়িয়ে চলেছেন এই সুনামধন্য অধ্যক্ষ একেএম শহীদুল ইসলাম ।