নির্বাচন ডাকাতি থেকে দৃষ্টি এড়াতে গণপরিবহণে আগুন: মির্জা ফখরুল

CNNWorld24
CNNWorld24 Dhaka
প্রকাশিত: 4:54 PM, November 17, 2020

নিউজ ডেস্কঃ ‘নির্বাচন ডাকাতির থেকে জনগণের দৃষ্টি এড়াতে গণপরিবহনকে আগুন দেওয়া হয়েছে। ভুয়া বাদী মামলায় হাজার হাজার নেতাকর্মী হয়রানি করা হচ্ছে।

মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ তথ্য জানিয়েছেন।

দলের ভারপ্রাপ্ত অফিসসচিব সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

মির্জা ফখরুল এক বিবৃতিতে বলেছেন, সরকার ব্যর্থতা, দুর্নীতি, লুটপাট ও ভোট-কারচুপি থেকে জনগণের দৃষ্টি এড়াতে ইচ্ছাকৃতভাবে গণপরিবহনে আগুন দিয়েছে। এখন তারা বিএনপির উপর এই ঘটনার দায় চাপিয়ে দেওয়ার জন্য ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়ের করে বিএনপি ও তার সহযোগী সংগঠনের কয়েক হাজার নেতাকর্মীকে হয়রানি ও গ্রেপ্তার করছে।

তাদের গ্রেপ্তার, আসবাব ভাঙচুর এবং পরিবারের সদস্যদের সাথে অশালীন ও অভদ্র আচরণ করে বাড়িতে ঘরে ঘরে অভিযানও চালাচ্ছে পুলিশ।

মির্জা ফখরুল আরও বলেছেন যে, সরকারের এই জঘন্য ঘটনার বিরুদ্ধে সারা দেশে নিন্দা ও অবজ্ঞার ঝড় উঠেছে, সরকার আবারও মিথ্যা নাটক বানিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে।

সরকার বলেছেন সিসিটিভি ফুটেজ দেখে মামলা দায়ের করা হয়েছে, তবে মামলায় বাদী হিসাবে দেখানো বাদী যার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন তা অস্বীকার করেছেন।

বিএনপির মহাসচিব বলেছেন, নকল বাদী মামলায় বিএনপির নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার ও হয়রানি করা হচ্ছে। অন্যদিকে, করোনাসহ বিভিন্ন রোগের কারণে দীর্ঘদিন ধরে হাসপাতালে বা বাড়িতে চিকিৎসাধীন ব্যক্তিরা সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বসবাসকারী নেতাকর্মীরা দীর্ঘদিন ধরে কোয়ারান্টিন বা বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছেন।

মির্জা ফখরুল প্রশ্ন তোলেন, সরকারের বিবৃতি অনুসারে সিসিটিভি ফুটেজ দেখে অভিযুক্ত, বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য বাবু গয়েশ্বর চন্দ্র রায়সহ অসুস্থ, আহত, চিকিৎসাধীন ও বিদেশের নেতাকর্মীদের অভিযুক্ত করা হয়েছে। কিসের ভিত্তিতে মামলা? আসলে, এটি নিশ্চিত যে এই মামলাগুলি সাজানো এবং বানোয়াট। রাজনৈতিক প্রতিহিংসা মেটাতে ফ্যাসিবাদী সরকারের কুফল।

মির্জা ফখরুল এক বিবৃতিতে বিএনপির নেতাকর্মীদের হয়রানি অবিলম্বে বন্ধ, গ্রেপ্তার হওয়া নেতাকর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তি এবং মিথ্যা অভিযোগ প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন।