বিএনপির কথায় গাধাও হাসে: তথ্যমন্ত্রী

Desk Reporter
Desk Reporter
প্রকাশিত: ৮:০৩ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৬, ২০২২

বিএনপি ভারতে গিয়ে দেশের কথা বলতে ভুলে গেছে, ভারত থেকে যা অর্জন করেছে তা আওয়ামী লীগ ও শেখ হাসিনার সময়েই হয়েছে। মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাসান মাহমুদ। তিনি বলেন, বিএনপি গণতন্ত্রের কথা বললে মানুষ হাসে, গাধাও হাসে।

নি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর নিয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল যা বলেছেন তা বিএনপি ও খালেদা জিয়ার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। আপনার কি মনে আছে, খালেদা জিয়া ভারত সফর থেকে ফিরে আসার পর তাকে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল গঙ্গার পানির ন্যায্য ভাগের কী হয়েছে? তখন খালেদা জিয়া বলেন, আল্লাহ, আমি ভুলেই গিয়েছিলাম। যাদের নেতারা ভারত সফরে গিয়ে গঙ্গার পানির ন্যায্য অংশের কথা বলতে ভুলে যান, তারা সব সময় ভারতকে সব দিয়েছেন, কিছুই ফেরত পাননি।

এর আগে সোমবার মির্জা ফখরুল বলেন, প্রধানমন্ত্রী যতবার ভারত সফরে এসেছেন ততবারই কেবল নিয়ে এসেছেন, কিন্তু কিছুই নিয়ে আসেননি।

ফখরুল বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর নিয়ে কথা বলার জন্য আমার সাংবাদিক ভাইয়েরা আমাকে চিঠি দিয়েছেন। আমি গতকাল বলেছিলাম, আমি এই বিষয়ে কথা বলতে চাই না। কারণ আমাদের অভিজ্ঞতা খুবই তিক্ত, হতাশার অভিজ্ঞতা, হতাশার অভিজ্ঞতা।’

সাংবাদিক ড.হাছান মাহমুদ বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সরকারের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক খুবই ভালো, রক্তের অক্ষরে লেখা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে আমাদের দুই দেশের সম্পর্ক ন্যায্যতার ভিত্তিতে পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে। আমাদের সরকার ভারতের কাছ থেকে অনেক কিছু আদায় করেছে। প্রধানমন্ত্রী টানা তিন মেয়াদে প্রথমবারের মতো ২০টি পণ্য ছাড়া তামাকসহ সব পণ্যে শুল্কমুক্ত রপ্তানি সুবিধা আদায় করেছেন।

‘সরকার উৎখাত করে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে হবে’ বিএনপি মহাসচিবের বক্তব্য সম্পর্কে এক প্রশ্নের জবাবে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, অগণতান্ত্রিকভাবে বন্দুকের নল থেকে বিএনপির উৎপত্তি। জিয়াউর রহমান ক্ষমতা দখল করে মানুষ হত্যার জন্য বন্দুকের নল উঁচিয়ে যে দলটি ক্ষমতা দখল করে ক্ষমতার উদ্বৃত্ত বণ্টন করেছে, সেই দল যখন গণতন্ত্রের কথা বলে, মানুষ হাসে, গাধাও হাসে।

তথ্যমন্ত্রী স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, ১৯৭৪ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাক্ষরিত জোট চুক্তির আওতায় আমাদের ছিটমহলগুলো আমাদের হস্তান্তর করার কথা ছিল। মাঝখানে কয়েক দফা বিএনপি ক্ষমতায় ছিল, এরশাদ ক্ষমতায় ছিল। সেনাবাহিনী সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় ছিল। কিন্তু এসব ছিটমহলের অধিকার কেউ দাবি করতে পারেনি।

তিনি বলেন, ছিটমহলের লাখ লাখ মানুষের কোনো দেশের পরিচয় নেই। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার ভারতের সঙ্গে সমঝোতা করে এবং চুক্তির বহু দশক পর তা অর্জন করে, ছিটমহলগুলো আমাদের অধিকারে আসে, আমাদের দেশের আয়তন বেড়ে যায়। আন্তর্জাতিক আদালতে ভারতের বিরুদ্ধে মামলা করে আমরা সমুদ্রসীমা জিতেছি। তাই ভারত থেকে যা সংগ্রহ করা হয়েছে, তা আওয়ামী লীগ সরকার করেছে, শেখ হাসিনা তা করেছেন। আর বিএনপি সবই ভারতে নিয়ে এসেছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী কেন ভারত সফরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যাননি এমন প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী যখন বিদেশে যান তখন সে দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সবসময় সঙ্গে যান না। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে আমাদের বলা হয়েছে, পররাষ্ট্রমন্ত্রী কিছুটা অসুস্থ, সে কারণে তিনি যাননি। জিজ্ঞেস করতে পারেন- গতকাল তিনি অফিসে গেলেন কিভাবে? আপনি একটু অসুস্থ হলে অফিসে যেতে পারেন, কিন্তু এত উচ্চ পর্যায়ের সফর সম্ভব নয়